দিনটি ২৭ শে ফেব্রুয়ারী,২০১৯ সাল। বুধবার । অন্যান্য দিনের মতো আজও অফিসে যে যার কাজ নিয়ে ব্যাস্ত ।প্রতি মাসের মতো আজ ছিলো শিক্ষার্থীদের  Monthly Birthday Party. আজকের পার্টিতে কে কি করবে তা নিয়ে গুঞ্জন চলছিলো শিক্ষার্থীদের  ভিতর। এমন সময়  প্রিন্সিপ্যাল ম্যাডাম  নিয়ে এলেন  খবরটা। আর কিছুক্ষণের মধ্যেই আমাদের শিক্ষার্থীদের  সাথে দেখা করতে আসছে  মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ ২০১৭ ! শিক্ষার্থীরা এটা শুনেইতো চোখমুখভর্তি আনন্দ নিয়ে আপাকে জানালো ওরা মিস বাংলাদেশ এর সাথে ছবি তুলবে, উনার সাথে মজা করবে  ইত্যাদি,  ইত্যাদি । শিক্ষার্থীদের দাবি ও আগ্রহগুলো  শুনলে মনে হয় ওরা মূহুর্তেই প্রায় এক পাতার মতো লিস্ট খুলে বসেছে।

রুপ-সৌন্দর্য নিয়ে বিশেষকরে আমাদের শাওলী (শিক্ষার্থী) সবসময় খুবই সজাগ। মেয়েদের বিউটি পার্লার খোলার খুব শখ আছে ওর । সে-ই একমাত্র শিক্ষার্থী যে প্রিন্সিপ্যাল ম্যাডাম-কে একের পর এক প্রশ্ন করে যাচ্ছে মিস বাংলাদেশকে নিয়ে । কিভাবে মিস বাংলাদেশ হওয়া যায় , উনার মধ্যে  কি কি গুন আছে, এমন ধরনের সব প্রশ্ন । জায়গাটা ব্লক-বাটিক সেকশন। ওর হাতে আছে সিঙ্গেল কামিজ, যার উপর সে কাঁথা স্টিচ করছে ।  সবমিলিয়ে এই  জায়গাটায় কাজ করতে পছন্দ করে সে । ঠিক পাশের রুমটিতে হলো গ্রুপ ওয়ার্ক স্পেস । ওর কাছে গ্রুপ ওয়ার্ক স্পেস টি খুব অপছন্দের একটি জায়গা। সে সহজে এখানে আসতে চায়না ।

এরই মধ্যে গ্রুপ ওয়ার্ক স্পেসে  উপস্থিত হয়েছেন  Miss World Bangladesh 2017-  ‘Jessia Islam’।  শাওলী টের পেয়েই এক দৌড়ে গ্রুপ ওয়ার্ক স্পেসে  হাজির। একভাবে তাকিয়ে আছে মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশের দিকে। শিক্ষার্থীরা  সবাই ঘিরে ধরেছে জেসিয়া ইসলাম- কে। উনি যেন কত আপন আমাদের শিক্ষার্থীদের  । আমাদের শিক্ষার্থীরাও সহজেই আপন করে নিল উনাকে । অনেকটা সময় ধরে উনি ঘুরে ঘুরে দেখলেন শিক্ষার্থীদের হাতের বিভিন্ন রকমের কাজ ও কাজের জায়গা।

জেসিয়া ইসলাম বললেন- ‘শিক্ষার্থীদের সাথে তোলা ছবিগুলো আমার স্মৃতিকে বার বার মনে করাবে ওদেরকে । ওদের কাজ দেখে আমি আমার ভাষা হারিয়ে ফেলেছি । আমি হতবিহব্বল !’

উনি  বেশ আগ্রহ নিয়ে অনেক কিছু জানতে চাইলেন আমাদের বাচ্চাদের সম্বন্ধে।  বললেন, ‘ এরকম অভিজ্ঞতা আমার আগে হয়নি । তবে  আমি সত্যি লাকি যে,শিক্ষার্থীদের সাথে কিছুটা সময় কাটাতে পেরেছি।সামনের দিনগুলোতেও ওদের পাশে থাকতে চাই ।’

বিকেলে সময় হলো Monthly Birthday Celebration – এর । শিক্ষার্থীরা  কালচারাল প্রোগ্রাম করলো । জেসিয়া ইসলাম মুগ্ধ হয়ে দেখলেন আমাদের শিক্ষার্থীদের পারফরমেন্স। এই মাসে Miss World Bangladesh 2017! Jessia Islam এর সাথে কেক কাটলো শিক্ষার্থীরা । আমাদের শিক্ষার্থীরা  উনাকে তাদের বন্ধুর মতই  গ্রহণ করলো। আর যেমন ভাবা তেমন কাজ। বন্ধুর সাথে শিক্ষার্থীরা  কাটাল অনেকটা চিত্তাকর্ষক সময় ।  বন্ধুরা বাতাসের মতো দূরে  গেলেও স্মৃতি বয়ে  নিয়ে যায় সাথে । তাই বন্ধুরা থাকে মনের গভীরে, আপনেরই কাছে।

Leave a Reply