পিএফডিএ- ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টার ২০১৪ সালের অক্টোবর যাত্রা শুরু করে । প্রতিষ্ঠানটি গতানুগতিক ধারার বাইরে এসে স্নায়ুবিক প্রতিবন্ধীতা সম্পন্ন ব্যক্তিদের জন্য বাংলাদেশে প্রথম কারিগরি প্রশিক্ষণের দ্বার উন্মুক্ত করে। সেই সাথে স্নায়ুবিক প্রতিবন্ধীতা সম্পন্নদের জন্য কারিগরী শিক্ষা , চাকুরীর ও অর্থনৈতিক ভাবে সক্ষমতার বিষয়ে ভিটিসি সমাজের মূলধারায় শক্ত অবস্থান তৈরিতে কাজ করেছে । অক্টোবর ২০১৮ এ প্রতিষ্ঠানটি ৫ ম বর্ষে পদার্পণ উপলখ্যে আয়োজন করা হয়েছে বিয়ন্ড বর্ডার জার্নি অফ পিএফডিএ- ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টার ।

অনুষ্ঠানটি আয়োজিত হয় ২৬ অক্টোবর ২০১৮ শুক্রবার বিকেল ৫:৩০ জাতীয় নাট্যশালা, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীতে.

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন গণপজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সমাজকল্যাণ মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রী জনাব রাশেদ খান মেনন, এমপি
এছাড়া বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা) এর এক্সিউটিভ চেয়ারম্যান জনাব কাজী আমিনুল ইসলাম। এবং বাংলাদেশ শিল্পকলা একাদেমির মহা পরিচালক জনাব লিয়াকত আলি লাকির অনুপস্থিতিতে ছিলেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর সচিব জনাব  বদরুল  আমিন ।

এছাড়াও বিশেষ অতিথি হিসেবে আরও ছিলেন কনফিডেন্স গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান জনাব ইমরান করিম। এছাড়াও অতিথি হিসেবে আরও ছিলেন বাংলাদেশের জনপ্রিয় ক্রিকেটার মোঃ আশরাফুল, বাংলাদেশ ব্যান্ড মিউজিক এ্যাসোসিয়েশনের সুমন আলী , ILO এর চীফ টেকনিক্যাল এডভাইজার মি কিশোর কুমার সিং
অনুষ্ঠানের ৩ টি পর্বে বিভক্ত ছিল।
১ম পর্বে ছিল বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন ব্যক্তিদের ফুলেল সংবর্ধনা প্রদান যারা পিএফডিএ- ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টার থেকে প্রশিক্ষণ নিয়েছে এবং বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাকরি করছে। ফুলেল সংবর্ধনা দেন ILO এর চীফ টেকনিক্যাল এডভাইজার মি কিশোর কুমার সিং।

সেই সাথে পর্যায়ক্রমে যে সব প্রতিষ্ঠান যারা স্নায়ুবিক প্রতিবন্ধী ব্যক্তিদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছে এমন কয়েকটি প্রতিষ্ঠানকে সম্মাননা প্রদান করা হয়।
অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে ছিলেন গণপজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সমাজকল্যাণ মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রী জনাব রাশেদ খান মেনন এমপি, এরকাছ থেকে সম্মাননা গ্রহণ করে বাংলাদেশ পর্যটন কর্পোরেশনের চেয়ারম্যান জনাব আখতারুজ্জামান খান কবির , পর্যায়ক্রমে সম্মাননা গ্রহণ করেন বাংলাদেশের রিটেইল শপ স্বপ্নের এক্সকিউতিভ ডিরেক্টর জনাব সাব্বির নাসিরের অনুপস্থিতিতে স্বপ্ন এর এইচআর ম্যানেজার সানজিদা শারমিন এবং দ্যা অলিভস এর সিইও জনাব প্রফেসর মারুফ ইসলাম।

এরপর সেন্টারের বেস্ট প্যারেন্টস এ্যাওয়ার্ড প্রদান করা হয় ভিটিসির প্রশিখনার্থি রুমি আক্তারএর মা ফাতেমা বেগমকে।

এরপরে সম্মাননা প্রদান করা হয় এমন কিছু ব্যক্তিকে যারা ব্যক্তিগত ভাবে অন্তরালে থেকে সেন্টারের সাথে ছিলেন প্রথম থেকে।পর্যায়ক্রমে মাননীয় সম্মাননা গ্রহণ করেন কনফিডেন্স গ্রুপের ভাইস চেয়ারম্যান জনাব ইমরান করিম, সচিব বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর মহাপরিচালক জনাব লিয়াকত আলী লাকির পক্ষ থেকে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর সচিব জনাব বদরুল আনম

এবং বাংলদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন বোর্ডের এক্সিকিউটিভ চেয়ারম্যান জনাব কাজী এম আমিনুল ইসলাম

গণপজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সমাজকল্যাণ মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রী জনাব রাশেদ খান মেনন এমপি,কে সম্মাননা প্রদান করেন পিএফডিএ- ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টারের প্রতিষ্ঠাতা এবং চেয়ারম্যান জনাব সাজিদা রহমান ড্যানি।

 

এরপর কেক কেটে পিএফডিএ- ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টারের ৫ ম বর্ষে প্রদাপণ উদযাপন করেন মঞ্চে উপবিষ্ট অতিথিবৃন্দ।

কেক কাটার পর পর্যায়ক্রমে বক্তব্য প্রদান করেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর মহা পরিচালক জনাব লিয়াকত আলী লাকির পক্ষ থেকে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমীর সচিব জনাব বদরুল আনম ,বাংলাদেশ বিনিয়োগ বোর্ডের এক্সিকুতিভ চেয়ারম্যান জনাব কাজি এম আমিনুল ইসলাম এবং সর্বোপরি প্রধান অতিথি হিসেবে গণপজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের সমাজকল্যাণ মন্ত্রনালয়ের মাননীয় মন্ত্রী জনাব রাশেদ খান মেনন এমপি তার বক্তব্য প্রদান করেন।

 

 

অনুষ্ঠানের ২য় পর্বে কারিশমা সাংস্কৃতিক দলের আনুষ্ঠানিক উদ্ভোধন করা হয়। সকল অতিথির উপস্থিতিতে বিশিষ্ট নাট্যজন রামেন্দু মজুমদার, ও অবসরপ্রাপ্ত বিগ্রেডিয়ার জেনারেল জনাব মোস্তফা কামাল, জাতীয় ক্রিকেট দলের খেলোয়ার মহাম্মদ আশরাফুল, কিশর কুমার সিং এবং মাননীয় মন্ত্রী জনাব রাশেদ খান মেনন প্রদীপ প্রজ্বলনের মাধ্যমে কারিশমা সাংস্কৃতিক দলের আনুষ্ঠানিক উদ্ভোধন করেন। উল্লেখ্য যে কারিশমা স্নায়ুবিক প্রতিবন্ধীতায় আক্রান্তদের জন্য প্রথম সাংস্কৃতিক দল যার পরিচালনায় আছে পিএফডিএ- ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টার ট্রাস্ট

এ সময়ে কারিশমা সাংস্কৃতিক দলের প্রতি শুভেচ্ছাবানী দেন বিশিষ্ট নাট্যজন রামেন্দু মজুমদার।
উদ্ভোধন শেষে সেন্টারের প্রতিষ্ঠাতা এবং চেয়ারম্যান জনাব সাজিদা রহমান ড্যানি প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রমের উপর একটি প্রেজেন্টেশন দেন। সেখানে তিনি প্রতিষ্ঠানের বিশেষ সফটওয়ার “Curriculum Unit Measurement Operating Software” ‘CUMO’ যা Autism এবং অন্যান্য স্নায়ুবিক প্রতিবন্ধীতা সম্পন্নদের দৈনন্দিন কার্যাবলী এবং System Suggested skill improver tasks, Individual target Plan, Regular progress monitoring, Behavioral and incidental pattern identification করা সম্ভব । এটা বাংলাদেশে প্রথম এবং পৃথিবীতে হাতে গোনা কয়েকটি মাত্র আছে ।

সর্বোপরি ৩য় পর্বে ছিল কারিশমা সাংস্কৃতিক দলের পরিবেশনায় নাটক “মানচিত্রের জন্য” নাটকটির মূল উপজীব্য বিশয় ছিল গ্রামীণ বাংলা, ভাষা আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ ।

 

 

Leave a Reply